হটলাইনে করোনা সেবা পেতে বিড়ম্বনার অভিযোগ

প্রকাশিত: ২:২৭ অপরাহ্ণ, মে ২৪, ২০২০

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইস্কাটন গার্ডেন রোডস্থ একটি ভবনের  বাসিন্দা জানিয়েছেন যে তিনি সম্প্রতি করোনার উপসর্গে ভুগছিলেন।  আইইডিসিআর-এর হটলাইনগুলোতে ফোন দিয়েছিলেন। কিন্তু অপর প্রান্ত  থেকে ফোন রিসিভ হয়নি বলেও অভিযোগ করেন তিনি । পরে তিনি ঢাকা  মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল  থেকে  সেবা নিয়েছেন। আরেক ভুক্তভোগী হামীম সরকার।  রাজধানীর  গোপীবাগের একজন বাসিন্দা। তার পরিবারে চার সদস্য। তাদের  পরিবারে একজন বয়স্ক ব্যক্তিও ছিলেন।  যিনি জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাস কষ্টের উপসর্গ নিয়ে কয়েকদিন হলো মারা  গেছেন।   অভিযোগ করে বলেন, আমরা সরকারের   রোগতত্ত্ব,  রোগনিয়ন্ত্রন ও গবেষণা ইনস্টিটিউট ( আইইডিসিআর) এর হটলাইনে বারবার চেষ্টা করেও সাড়া পাইনি।

উপায়  না পেয়ে  মুগদা হাসপাতালে যাই। সেখানেও মিলেনি  স্বাস্থ্যসেবা।  পরে বিএসএমএমইউ থেকে স্বাস্থ্যসেবা নিয়েছেন।  এভাবে করোনার উপসর্গ নিয়ে হটলাইনে ফোন দিয়েও  কোন উত্তর  না পাওয়ার অহরহ অভিযোগ আসছে।  তবে স্বাস্থ্য  অধিদপ্তর  ও আইইডিসিআর’র কর্মকর্তারা বলছেন, করোনার প্রদূর্ভাব দেখা দেয়ার পর শুরুতে  কম হটলাইন সংখ্যার  কারণে একটু সমস্যা  হয়েছিল। এখন  সেই সমস্যা  নেই। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দাবি এ পর্যস্ত করোনা সংক্রান্ত প্রায় ৬৩ লাখ মানুষকে হটলাইনে  সেবা  দেয়া হয়েছে। এদিকে, জ্বর-সর্দি-কাশি-শ্বাসকষ্টের রোগীদের নিয়ে স্বজনরা হাসপাতাল থেকে হাসপাতালে ছুটছেন। কিন্তু কোথাও চিকিৎসা মিলছে না।  অভিযোগ রয়েছে, করোনার উপসর্গের সঙ্গে  জ্বর, সর্দি, কাশি, গলাব্যথা ও শ্বাসকষ্টের মতো  রোগের লক্ষণ মিলে যায়। এ কারণে  চিকিৎসকরা এসব  রোগীরও চিকিৎসা না দিয়ে করোনা বিশেষায়িত হাসপাতালের দিকে পাঠিয়ে  দেন। এদিকে সরকারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সমন্বিত নিয়ন্ত্রন  কেন্দ্রের দাবি- করোনা (কভিড-১৯)  সংক্রান্ত হটলাইনে ১৯ শে  মে পর্যন্ত ৬২ লাখ ৮৬ হাজার ৭৯১ জনকে  সেবা দিয়েছেন। এর মধ্যে  হটলাইনে ১৬২৬৩ ( স্বাস্থ্য বাতায়ন) ৩৫ লাখ ৬৮ হাজার ২৬৬টি , ৩৩৩ হটলাইনে ২৪ লাখ ৯৫ হাজার ৩৩১ টি এবং আইইডিসিআর(১০৬৫৫;০১৯৪৪৩৩৩২২২) হটলাইনে ২ লাখ ২৩ হাজার ১৯৪ টি কল এসেছে।  স্বেছাসেবা হিসেবে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত তথ্য ও চিকিৎসা সেবা  প্রদানে  হটলাইনে যুক্ত আছেন  চার হাজারের ওপরে  চিকিৎসক।