ঢাকা, রবিবার ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১১ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

স্যাটেলাইট ও ড্রোনে ভূমি জরিপ, আড়াই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প


প্রকাশিত: ১০:১৯ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২০

স্যাটেলাইট ও ড্রোনের মাধ্যমে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভূমি ব্যবস্থাপনা আধুনিকায়নে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকার দুটি প্রকল্প জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির- একনেক সভায় অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

প্রকল্প দুটি হলো এক হাজার ১৯৭ কোটি টাকা ব্যয়ে চলতি জুলাই হতে ২০২৫ সালের জুন মেয়াদে ‘ভূমি ব্যবস্থাপনা অটোমেশন প্রকল্প’ এবং এক হাজার ২১২.৫৫ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে চলতি জুলাই হতে ২০২৫ সালের জুন মেয়াদে ‘ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভূমি জরিপ করার জন্য ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের ডিজিটাল জরিপ পরিচালনার সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ’ প্রকল্প

গতকাল মঙ্গলবার শেরে বাংলানগরে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় প্রকল্প দুটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে একনেক চেয়ারপারসন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী ও ভূমি সচিব মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী শেরে বাংলানগরে অবস্থিত এনইসি ভবন থেকে সভায় অংশগ্রহণ করেন।

ভূমি ব্যবস্থাপনা অটোমেশন

এ প্রকল্পের মাধ্যমে ১৭টি বিভিন্ন ধরণের ভূমি সেবা অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার তথা- ই-মিউটেশন, রিভিউ ও আপিল মামলা ব্যবস্থাপনা, অনলাইন ভূমি উন্নয়ন কর, রেন্ট সার্টিফিকেট মামলা ব্যবস্থাপনা, মিউটেটেড খতিয়ান, ডিজিটাল ল্যান্ড রেকর্ড, মৌজা ম্যাপ ডেলিভারি সিস্টেম, মিস মামলা ব্যবস্থাপনা, কৃষি ও অকৃষি খাসজমি ব্যবস্থাপনা, দেওয়ানি মামলা তথ্য ব্যবস্থাপনা, হাটবাজার ব্যবস্থাপনা, জলমহাল ব্যবস্থাপনা, বালু মহাল ব্যবস্থাপনা, চা-বাগান ব্যবস্থাপনা, ভিপি সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা, ভূমি অধিগ্রহণ ব্যবস্থাপনা ও অভ্যন্তরীণ বাজেট ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি- ‘ল্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিস ফ্রেমওয়ার্ক’ সিস্টেম সফটওয়্যারের মাধ্যমে একই কাঠামোয় নিয়ে এসে আন্তপরিচালনযোগ্য (Interoperable) ডেটাবেজ তৈরি করে সরকারের অন্য সব সেবার সঙ্গে সমলয় (Synchronize) করা হবে। এ প্রকল্পটি সরাসরি ভূমি মন্ত্রণালয় বাস্তবায়ন করবে।

ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভূমি জরিপ প্রকল্প

এ প্রকল্পে স্যাটেলাইট ও ড্রোনের মাধ্যমে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে অপেক্ষাকৃত স্বল্প সময়ে, নির্ভুলভাবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভূমি জরিপ করার জন্য তিনটি পার্বত্য জেলা ব্যতীত সারা দেশের ৪৭০টি উপজেলার মৌজা পর্যায়ে জিওডেটিক সার্ভের মাধ্যমে দুই লাখ ৬০ হাজার ৩১০টি জিও-রেফারেন্সিং পয়েন্ট নির্ধারণ করা হবে ও এক লাখ ৩৩ হাজার ১৮৮টি মৌজা ম্যাপের ডাটাবেজ ডাটাবেজ প্রস্তুত করা হবে।

এ ছাড়া, পটুয়াখালী ও বরগুনা জেলায় এসএ জরিপের পর আরএস জরিপ সম্পন্ন না হওয়ায় এ দুটি জেলার ১৪টি উপজেলায় ডিজিটাল পদ্ধতিতে জরিপ সম্পন্ন করা হবে। এ প্রকল্পের আওতায় নির্ধারিত জিও-রেফারেন্স-কৃত মৌজা ম্যাপ উপর্যুক্ত ‘ভূমি ব্যবস্থাপনা অটোমেশন’ প্রকল্পে সরবরাহ করা হবে। এ প্রকল্পটি ভূমি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর বাস্তবায়ন করবে।

প্রকল্প দুটি বাস্তবায়িত হলে প্রত্যাশিত সেবাগ্রহীতা সংশ্লিষ্ট ভূমি অফিসে না গিয়ে ঘরে বসে মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে সেবা পাবেন। হাতের মুঠোয় ভূমিসেবা প্রদানই প্রকল্প দুটির মূল লক্ষ্য।