ঢাকা, শনিবার ২৩শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৬ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

সাধারণ জিজ্ঞাসা: (১০) নামাজী ব্যক্তির সামনে থেকে উঠে যাওয়া যাবে কি?


প্রকাশিত: ১০:৩৮ অপরাহ্ণ, জুন ২২, ২০২০

প্রশ্ন. নামাজী ব্যক্তির সামনে দিয়ে চলাচল করা নিষেধ আমরা জানি। কিন্তু পিছনে এক ব্যক্তি নামাজ পড়ছেন, এমতাবস্থায় আমি যদি সামনে থেকে সরে যাই তাহলে কি গুনাহ হবে?

উত্তর. উত্তরের সুবিধার্থে প্রথমেই সহিহ বুখারীর একটি হাদীস উল্লেখ করছি৷ নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “যদি নামাজী ব্যক্তির সামনে দিয়ে অতিক্রমকারী জানত তার এই কর্মের শাস্তি কী তাহলে ৪০ বছর বা ৪০ দিন বা ৪০ ঘন্টা ঐ স্থানে দাঁড়িয়ে থাকাকে (সামনে দিয়ে যাওয়ার চেয়ে) শ্রেয় মনে করত”।

এই হাদীস থেকে বোঝা যায় নামাজী ব্যক্তির সামনে দিয়ে হাঁটাচলা করা বা অতিক্রম করা যাবে না। ফলে প্রশ্ন সৃষ্টি হয় কোনো ব্যক্তি আমার বরাবর পেছনে নামায পড়ছে আর আমি তার বরাবর সামনে দাঁড়িয়ে আছি বা বসে আছি এমতাবস্থায় আমি তার সামনে থেকে সরে যেতে পারব কিনা? বা অনেক সময় দেখা যায়, একজন ব্যক্তি নামাজের শেষ প্রান্তে আছে। কিন্তু তার সামনের কাতারের জায়গাটা খালি আছে। সেখানে কেউ যেতে চাচ্ছে না৷ কারণ, হাদীসে তো এ ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আছে। এখন করনীয় কী?

আসলে নামাজী ব্যক্তির সামনে থেকে উঠে যাওয়া বা পিছন থেকে কাতার পূরণ করার জন্য নামাজী ব্যক্তির বরাবর আসাটা সহীহ বুখারীর ঐ হাদীসটির নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়ে না৷ কারণ, হাদীসে مرور শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। আর مرور শব্দের অর্থ হচ্ছে অতিক্রম করা৷ একপাশ থেকে ক্রস করে আরেক পাশে যাওয়া। ডানে-বামে সরে গেলে বা ডান-বাম থেকে সামনের কাতার পরিপূর্ণ করলে কোনোটাতেই অতিক্রম করা হয় না৷ পিছন থেকে সামনে আসাকে বলা হয় صعود আর সামনে থেকে পিছনে যাওয়াকে বলা হয় نزول৷ হাদীসে এ দুটোকে নিষেধ করা হয়নি৷ নিষেধ করা হয়েছে مرور তথা অতিক্রম করাকে৷ ফলে উপরোক্ত পদ্ধতিগুলোতে কোনো সমস্যা নেই৷ আল্লাহ তা’য়ালা আমাদের সবাইকে বুঝার এবং আমল করার তাওফিক দান করুন, আমীন।

উত্তর প্রদান করেছেন শায়খ আহমাদুল্লাহ৷