ঢাকা, মঙ্গলবার ১২ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৭শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ৫ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

সাধারণ জিজ্ঞাসা: (০৮) ইলেক্ট্রিক ব্যাট দিয়ে মশা,মাছি মারা জায়েজ কিনা?


প্রকাশিত: ১১:০৩ অপরাহ্ণ, জুন ১৯, ২০২০

 

প্রশ্নঃ ইলেক্ট্রিক ব্যাট দিয়ে মশা-মাছি মারা জায়েজ কিনা?

 

উত্তরঃ আসলে এই প্রশ্নটি আসার কারণ হলো- সহীহ বুখারীর এক হাদীসে এসেছে রাসূল ﷺ বলেছেন, ‘আগুন এটি আল্লাহর এমন একটি সৃষ্টি যেটা দিয়ে আল্লাহ ছাড়া আর কারো শাস্তি দেয়ার অধিকার নেই।’ অর্থাৎ কাউকেই আগুন দ্বারা শাস্তি দেয়া যাবে না। মানুষ, পশু-পাখি বা পোকা-মাকড়।

 

সুনানে আবু দাউদের এক হাদীসে এসেছে যে, সাহাবীদের কেউ কেউ পিপিলিকার একটি দল বা তাদের ঘর আগুনে পুড়ে শেষ করে দিয়েছিলো৷ রাসূল ﷺ এ সংবাদ জানতে পেরে এমনটা করতে নিষেধ করে দেন৷ এবং বলেন, ‘আগুন দিয়ে আগুনের মালিক ছাড়া আর কারো শাস্তি দেয়ার অনুমতি নেই।’ এ সমস্ত রিওয়াত থেকে প্রশ্ন সৃষ্টি হয়— ইলেক্ট্রিক ব্যাট দিয়ে মশা-মাছিও তো পুড়েই মারা হয়৷ এটা কি তাহলে নাজায়েয?

 

উত্তর হলো- না, নাজায়েয না৷ ইলেক্ট্রিক ব্যাট দিয়ে মশা-মাছি মারা যাবে। জায়েজ হওয়ার তিনটি কারণ:

১) ইলেক্ট্রিক ব্যাট দিয়ে মশা-মাছিকে মূলত শক করা হয়। এদের মৃত্যু হয় মূলত শকের মাধ্যমে। পরে যত টেপা হয় ততই সেগুলো ফুটতে থাকে। তাছাড়া ইলেক্ট্রিক ব্যাট তো কোনো পোড়ানোর যন্ত্রও নয়। কোনো কাগজ বা এ জাতীয় কিছু এতে দিলে তা পুড়বে না। তাই মূলত ইলেক্ট্রিক ব্যাট দিয়ে পুড়িয়ে নয় বরং শক দিয়ে মারা হয়।

২) হাদীসে আগুন দিয়ে কাউকে শাস্তি দিতে নিষেধ করা হয়েছে। আর আমরা যে ইলেক্ট্রিক ব্যাট দিয়ে মশা-মাছি মারি এটা শাস্তি নয়। বরং এ জাতীয় কীটপতঙ্গের ক্ষতি থেকে বাঁচার জন্য আত্মরক্ষা। তাই এটি হাদীসের নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়ে না।

৩) সাধারণত ইলেক্ট্রিক ব্যাট বা এই জাতীয় কিছু ছাড়া মশা-মাছি মারার কোনো অধিকতর কার্যকর উপায় নেই। তাই নিরুপায় হয়েই আমরা এটি ব্যবহার করি। এসব কারণকে সামনে রেখে বিশিষ্ট অনেক আলেমই এটাকে জায়েজ বলেছেন।

 

উত্তর দিয়েছেন শায়খ আহমাদুল্লাহ।