সর্বাধিক ৮৩০ কোটি টাকার বাজেট পেলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিত: ১১:০৬ অপরাহ্ণ, জুন ২৪, ২০২০

দেশের ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ২০২০-২১ অর্থবছরে ৮ হাজার ৪৮৫ কোটি ১২ লাখ টাকার বাজেট অনুমোদন করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। এরমধ্যে ৮৩০ কোটি ৬ লাখ টাকার বাজেট পেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, যা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি।

ইউজিসি ঘোষিত বাজেটের মধ্যে পাঁচ হাজার ৪৫৪ কোটি ১২ লাখ টাকার রাজস্ব বাজেট এবং ৫৩টি প্রকল্পের অনুকূলে তিন হাজার ৩১ কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট রয়েছে। এবছর রাজস্ব বাজেটে বরাদ্দ পাঁচ শতাংশ বৃদ্ধি করা হয়েছে।

ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ-এর সভাপতিত্বে আজ বুধবার (২৪ জুন) ইউজিসি’র ১৫৮তম পূর্ণ কমিশন সভায় এ বাজেট অনুমোদিত হয়। দেশে করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রথমবারেরমতো পূর্ণ কমিশন সভা অনলাইন ভার্চুয়াল মিটিং প্লাটফর্ম জুমের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বাজেট উপস্থাপন করেন ইউজিসি’র অর্থ ও হিসাব বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর। সভার কার্যপত্র উপস্থাপন করেন ইউজিসি সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য প্রতিবছর ইউজিসি’র মাধ্যমে বাজেট প্রদান করা হয়। গত অর্থবছরে এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুকূলে বাজেটে বরাদ্দের পরিমাণ ছিলো ৮ হাজার ৮৮ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। সে তুলনায় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য এ বছর বরাদ্দ বেড়েছে প্রায় ৩৯৭ কোটি টাকা। নতুন অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি রাজস্ব বাজেট পেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এর পরিমাণ ৮৩০ কোটি ৬ লাখ টাকা।

উচ্চশিক্ষায় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের গবেষণায় জন্য ২০২০-২১ অর্থবছরে মূল বাজেটে ৬৬ কোটি ৬৫ লাখ বরাদ্দ ধরা হয়েছে। গতবছরের তুলনায় বাজেটে এ খাতে বরাদ্দ ৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে গবেষণায় মূল বাজেটে ৬৪ কোটি ৫৮ লাখ বরাদ্দ ধরা হয়েছিলো।

অনুষ্ঠানে পূর্ণ কমিশনের ১৫৭তম সভার কার্যাবিবরণী অনুমোদন, গৃহীত বিভিন্ন সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা, কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে শিক্ষা কার্যক্রমের বিষয়ে গৃহীত পদক্ষেপসমূহ অবহিত করাসহ কমিশনের পদোন্নয়ন/পদোন্নতি কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে ইউজিসির ১০ জন কর্মকর্তাকে পদোন্নয়ন দেওয়া হয়। এছাড়া পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনে ক্লাস পরিচালনার জন্য বিশেষ বরাদ্দ চেয়ে সরকারের কাছে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।