শ্রিংলার সঙ্গে আলোচনার বিষয় জানার অধিকার রয়েছে: নজরুল ইসলাম

প্রকাশিত: ৩:৫৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৯, ২০২০
বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলার বাংলাদেশ সফরে সরকারের সঙ্গে কী কী বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, তা জনগণের জানার অধিকার রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তবে কোনো অবস্থায়ই যেনো সরকার দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি না দেয়, সে দাবি জানান তিনি।

স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আজ বুধবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে ফাতেহা পাঠ এবং শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে নজরুল ইসলাম খান এ কথা বলেন।

করোনাভাইরাসের মহামারির সময়েও দুর্নীতি, মেজর অবসরপ্রাপ্ত সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যার বিষয় ভিন্ন দিকে নিতেই সরকার পরিকল্পিতভাবে আবদুল মাজেদকে (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি) নিয়ে জিয়াউর রহমানের সম্মানহানির চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেন নজরুল ইসলাম খান। জিয়াউর রহমানের সম্পর্কে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন তিনি।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের একটি রাজনৈতিক দলের সাধারণ সম্পাদক, তাঁর বিষয়ে আমি কী মন্তব্য করব, বুঝতে পারছি না। তবে তাঁর বক্তব্য মানুষের কাছে এখন হাসির পাত্র হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ যাঁর কণ্ঠে স্বাধীনতার ঘোষণা শুনেছেন, তিনি হলেন শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। তিনি ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী থেকে বিদ্রোহ করে তাঁর কমান্ডারকে হত্যা করে চট্টগ্রাম দখল করার মাধ্যমে প্রথম সেক্টর কমান্ডার হিসেবে রণাঙ্গনে যুদ্ধ করেছেন। তিনি যদি অপশনাল হন, তবে মূল কে? আর তখন ওবায়দুল কাদেরের অবস্থান কোথায় ছিল, সেটাও হয়তো তাঁর পরিষ্কার করা দরকার।’

‘আমরা জানি, মরহুম রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারকে হত্যার বিচার আদালতে হয়েছে। সেখানে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে কেউ অভিযুক্ত করে নি এবং মামলার কোথাও তাঁর নাম আসে নি। এখন সাজাপ্রাপ্ত আসামির ফাঁসির আগে জোরপূর্বক তাঁর বক্তব্য নিয়ে তা অনৈতিকভাবে ভাইরালের মাধ্যমে অপপ্রচার চালানো সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। শুধু জাতিকে বিভক্ত করার জন্য এসব বক্তব্য দেওয়া হচ্ছে। আমরা চাই, দেশের সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য এসব নোংরা কাদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ করুন।’

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলার আকস্মিক ঢাকা সফর সম্পর্কে জানতে চাইলে সাবেক এই কূটনীতিক বলেন, ‘পররাষ্ট্রনীতির সবার সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ হওয়াটাই উত্তম বলে আমরা বিএনপি মনে করি। তিনি এ দেশে আসতেই পারেন। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ হলো তাঁর সঙ্গে কী আলোচনা হলো, সেটা জনগণকে জানানো। জনগণের তা জানার অধিকার রয়েছে।’

‘জোর করে হোক আর যেভাবেই হোক, বর্তমানে যারা সরকারে আছে, তারাই দেশের দায়িত্ব পালন করছে। তাদের উচিত দেশের স্বার্থে কাজ করা। কোন দেশের সঙ্গে কোন বিষয়ে বৈঠক হলো, সে সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করা সরকারের দায়িত্ব। কিন্তু এমন অনেক চুক্তি হয়েছে, যা এখন পর্যন্ত প্রকাশ করা হয় নি। আমরা আশা করব, সরকার দেশের স্বার্থ রক্ষা করে পররাষ্ট্রনীতি পরিচালনা করবে এবং জনগণকে সব বিষয় অবহিত করবে।’