যমুনার পানি কিছুটা কমলেও অপরিবর্তিত বন্যা পরিস্থিতি

প্রকাশিত: ৪:০৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, টাঙ্গাইলে যমুনার পানি কিছুটা কমলেও বন্যা পরিস্থিতির তেমন কোনও উন্নতি হয় নি। কুড়িগ্রামে বেশকিছু এলাকায় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন।

জামালপুরে যমুনার পানি কমে বাহাদুরাবাদঘাট পয়েন্টে বিপদসীমার ৬১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বেড়েছে ব্রহ্মপুত্রসহ শাখা নদীর পানি। ৭ উপজেলার ৪৯টি ইউনিয়নের বন্যার পানি ঢুকে পড়ায় পানিবন্দী হয়ে পড়েছে প্রায় ৪ লাখ মানুষ।

টাঙ্গাইলে যমুনার পানি কমলেও বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয় নি। নতুন করে কোনও এলাকা প্লাবিত হয় নি। এদিকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনও কোনো ত্রাণ তৎপরতা দেখা যায় নি।

কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি ধীর গতিতে কমতে শুরু করলেও বেড়েছে ধরলার পানি। ১০ দিন ধরে এই দুই নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় লক্ষাধিক বানভাসী মানুষের দুর্ভোগ বেড়েছে। পাশাপাশি ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তিস্তা ও দুধকুমারের বেশ কিছু এলাকায় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন।

গাইবান্ধায় বন্যার পানি কমতে শুরু করলেও এখনও বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট নদীর পানি। বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়া বাড়িঘর ছেড়ে গবাদি পশু নিয়ে অনেকেই আশ্রয় নিয়েছেন বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে।

এদিকে, পানি কমতে থাকায় নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। যমুনায় বিলীন হয়েছে সাঘাটা উপজেলার গোবিন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয়।