বাজেট অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্ব থাকছে না

প্রকাশিত: ৭:৫৮ পূর্বাহ্ণ, জুন ২, ২০২০
জাতীয় সংসদ ভবন

এই প্রথম থাকছে না প্রশ্নোত্তর পর্ব

এই প্রথম জাতীয় সংসদে বাজেট পেশ অধিবেশনে কোনো প্রশ্নোত্তর পর্ব থাকছে না।

বাজেট অধিবেশন সাধারণত দীর্ঘ হয়। অর্থমন্ত্রী বাজেট প্রস্তাবের পর তা নিয়ে পুরো অধিবেশন জুড়ে আলোচনা করেন সংসদ সদস্যরা। গত বছর বাজেট অধিবেশন ২১ কার্যদিবসের ছিলো।

তবে এবার করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে দুই মাসের বেশি সময় সাধারণ ছুটি থাকায় মন্ত্রণালয়গুলো থেকে সংসদ সদস্যদের করা প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছে জাতীয় সংসদ সচিবালয় সূত্র।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির সূত্রমতে, বাজেট অধিবেশন ঘিরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে অনেকগুলো নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হচ্ছে। এছাড়া অধিবেশন চলাকালে মন্ত্রী-এমপি এবং কর্মকর্তা ও কর্মচারী করোনায় আক্রান্ত হলে তার জন্য রাজধানীর বড় তিনটি হাসপাতাল প্রস্তুত রাখা হচ্ছে। দুই মাসের ‘সাধারণ ছুটি’ শেষে অফিস-আদালত খুললেও সংসদ সচিবালয়ে প্রবেশ করতে পারবেন না দর্শনার্থীরা।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থাকার কারণে এবার কোনো সংসদ সদস্য বা সংসদের কর্মকর্তা দর্শনার্থীদের সংসদে ঢোকার পাস দিতে পারবেন না। ঢুকতে পারবেন না গণমাধ্যমকর্মীরাও।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে বাজেট অধিবেশনের কার্যক্রম সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত অধিবেশন হতে কাভার করার জন্য সাংবাদিকদের অনুরোধ জানিয়ে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। বাজেট অধিবেশনকালীন সাংবাদিকদের পাস সরবরাহ করা সম্ভব হবে না বলেও সংসদ সচিবালয় থেকে জানানো হয়।

তবে আগামী ১১ জুন ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থানের পরপরই বিকাল ৩টা ১৫ মিনিটে সংসদ ভবনস্থ মিডিয়া সেন্টার হতে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে বাজেট ডকুমেন্টস বিতরণ করা হবে। এক্রিডিটেশন কার্ড প্রদর্শন করে সংসদ চত্বরে প্রবেশ করে বাজেট ডকুমেন্টস গ্রহণ করা যাবে। প্রত্যেক গণমাধ্যম হতে একজনের অধিক সদস্য প্রেরণ না করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।