বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির ১৩ লাখ ৯৬ হাজার ৬০০ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব

প্রকাশিত: ৩:৪৭ পূর্বাহ্ণ, জুন ৯, ২০২০

আসন্ন অর্থবছরে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সম্প্রসারণমূলক ১৩ লাখ ৯৬ হাজার ৬০০ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় ২ মাসের অঘোষিত লকডাউনে দেশের ৬ কোটি মানুষ নতুন করে দরিদ্র হয়েছে। বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। সমিতির দাবি, করোনায় ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৩ লাখ কোটি টাকার। এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। এসময়, আগামী অর্থবছরের জন্য ১৩ লাখ ৯৬ হাজার কোটি টাকার বিকল্প বাজেট প্রস্তাব করেন সংগঠনের সভাপতি আবুল বারাকাত।

সোমবার “করোনা মহাবিপর্যয় থেকে মুক্তি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিকল্প বাজেট প্রস্তাবনা” শিরোনামে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের জন্য বিকল্প বাজেট পেশ করে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি। এসময় ১৩ লাখ ৯৬ হাজার ৬০০ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব করে অর্থনীতি সমিতি।

অর্থনীতি সমিতির সভাপতি দাবি করেন, করোনাভাইরাসের প্রকোপে প্রায় ৬ কোটি মানুষের শ্রেণি কাঠামো পরিবর্তন হয়েছে। এছাড়া, মধ্যবিত্তে থাকা ৩ কোটি ৪০ লাখ থেকে ১ কোটি ২ লাখ নিম্ন-মধ্যবিত্তে নেমেছে।

লকডাউনে সেবা খাতে ১ লাখ ৬৯ হাজার ৯৩৬ কোটি, শিল্প খাতের ১ লাখ ২ হাজার ৪১ কোটি এবং কৃষি খাতে ২৬ হাজার ৭৬৫ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে পরিসংখ্যান তুলে ধরেন আবুল বারকাত।

এদিকে বাজেটে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য শ্রেণিভেদে এককালীন ২০ হাজার টাকা দেয়া এবং দুই থেকে আড়াই শতাংশ সুদে ঋণের প্রস্তাবনা দেয়া হয়। এছাড়া বৈষম্য কমানোর পাশাপাশি দেশের উন্নয়ন সব স্তরের মানুষের কাছে পৌছানোর ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়।

কালো টাকা উদ্ধার এবং কালো টাকা সৃষ্টির পথ রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ বাজেটে অন্তর্ভূক্ত করার আহ্বান জানায় বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি।