বছরব্যাপী ঢাকা দক্ষিণের মশকনিধন কার্যক্রমের উদ্বোধন

আশফাক ইমরান

প্রকাশিত: ১২:১২ পূর্বাহ্ণ, জুন ৮, ২০২০

বছরব্যাপী মশকনিধন কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। আজ রোববার সকাল ১০টার দিকে লালবাগের নবাবগঞ্জ পার্ক এলাকায় বছরব্যাপী মশক নিধন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি। এরপর বিকেলে পুরান ঢাকার সামসাবাদ মাঠে উড়ন্ত মশা মারতে ফগিং কার্যক্রমের উদ্বেধন করেন।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, মশক নিধনে আগের গতানুগতিক কার্যক্রমকে উচ্চ থেকে নিচে নামানো হয়েছে। নতুনভাবে গৃহীত পরিকল্পনা আজ থেকে শুরু হল। এ কার্যক্রম একযোগে ৭৫ ওয়ার্ডে পরিচালিত হবে।

মেয়র বলেন, এখন থেকে প্রতি ওয়ার্ডে একযোগে আটজন মশকনিধন কর্মী সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত লার্ভিসাইডিং করবে। এছাড়া প্রতি ওয়ার্ডে ১০ জন মশক ক্রু দুপুর আড়াই থেকে সাড়ে ৬টা পর্যন্ত ফগিং কার্যক্রম পরিচালনা করবে। এ কার্যক্রম পরিচালনার ফলে মশার প্রজনন ও উপদ্রব অনেকাংশে হ্রাস পাবে।

ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস বলেন, নগরবাসী আর করোনা, ডেঙ্গু বা চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হোক আমরা সেটা চাই না। এ কারণেই করোনাভাইরাসের মধ্যেও মশক নিধন কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। এ কার্যক্রম ২৪ ঘণ্টা চলবে।

মেয়র বলেন, আগামী ১৪ জুন থেকে জলাশয়, নর্দমা পরিষ্কার কার্যক্রম শুরু করা হবে। জলাশয়গুলোতে তেলাপিয়া মাছ চাষের পাশাপাশি পাতিহাঁস পালনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যাতে করে জলাশয়গুলো সচল থাকে এবং মশার লার্ভা থাকতে না পারে। নগরীর কোনো এলাকায় মশার সমস্যা থাকলে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর, স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে জানাবেন। প্রয়োজন হলেও আমাকেও জানাবেন। করোনার বিস্তার রোধে লকডাউন বজায় রাখতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুসরণ করা হবে।

নগরবাসীর উদ্দেশে ডিএসসিসির মেয়র বলেন, সম্মানিত নগরবাসীদের গত বছরের মতো যেন মশার অত্যচার সহ্য করতে না হয় সে লক্ষ্যে আমি মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করেই মশক নিধনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছি। এটা অব্যাহত থাকবে। এর পাশাপাশি বর্জ্যব্যবস্থাপনা, রাস্তাঘাট, নর্দমা সংস্কার, ফুটপাত অবৈধ দখলমুক্ত করা, যানজট নিরসন প্রভৃতি বিষয়েও গুরুত্ব দিয়ে কার্যক্রম নেওয়া হচ্ছে।

ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস বলেন, উন্নত ঢাকা গড়ে তোলার লক্ষ্যে বিশিষ্ট নগর পরিকল্পনাবিদসহ বিশেষজ্ঞসহদের পরামর্শ অনুযায়ী দীর্ঘ পরিকল্পনা প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এ দুটি অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর, স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরবৃন্দ, ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ্ মো. ইমদাদুল হক, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. মো. শরীফ আহমেদ, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডর বদরুল আমীন প্রমুখ।