নমুনা পরীক্ষায় ভোগান্তির শিকার সাধারণ মানুষ

প্রকাশিত: ৯:৩৫ পূর্বাহ্ণ, জুন ২০, ২০২০

শুক্রবারে করোনার নমুনা সংগ্রহের অধিকাংশ বুথ বন্ধ থাকায় হয়রানির শিকার হয়েছেন অসংখ্য সাধারণ মানুষ। এছাড়া কখনো কখনো ফল পেতে লাগছে এক সপ্তাহেরও বেশি সময়। আবার ল্যাবের ত্রুটির কারণে দুই থেকে তিনবার নমুনা দিয়েও ফল হাতে পান নি অনেকেই।

জনবল ঘাটতিকেই ভোগান্তির মূল কারণ বলছে স্বাস্থ্য বিভাগ

গত এক বছর ধরে ক্যান্সারে ভুগছেন ৬০ বছর বয়সী আবুল বাশার। করোনা টেস্টের রিপোর্ট হাতে না থাকায় তিনটি হাসপাতাল ঘুরেও ভর্তির সুযোগ মেলে নি তার। সঠিকভাবে নমুনা সংগ্রহ না হওয়ায় ১১ জুন থেকে তিনবার নমুনা দিয়েও হাতে পান নি পরীক্ষার ফল।

মুগদা জেনারলে হাসপাতালে তৃতীয়বারের মতো নমুনা পরীক্ষা করাতে এসেছেন সানজিদা আক্তার। তার করোনা পরীক্ষা সঠিকভাবে সম্পন্ন হলেও ফল পেতে সময় লেগেছে ৮দিন।

ভুল রিপোর্ট আসা, নমুনা নষ্ট হয়ে যাওয়া, রিপোর্ট পেতে দেরীসহ নানা ভোগান্তি পোহাচ্ছেন রাজধানীর ল্যাবগুলোতে করোনা পরীক্ষা করাতে আসা রোগীরা।

শুক্রবার বন্ধ থাকে রাজধানীর বেশ কিছু সরকারি হাসপাতালের নমুনা সংগ্রহ বুথ। ব্রাকের ৩১টিসহ বেসরকারি ৩৯ বুথের প্রতিটিই বন্ধ থাকে এ দিন। এ কারণে নমুনা দিতে এসে ফিরে গিয়েছেন অনেকেই।

পর্যাপ্ত জনবল ও দক্ষ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট না থাকার কারণেই নমুনা পরীক্ষায় জটিলতা তৈরি হচ্ছে বলে মনে করছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। আর স্বাস্থ্যবিভাগ বলছে, জনবল সংকটের কথা।

তবে সচেতনতার অভাব সাধারণ মানুষের মাধ্যেও। নমুনা দিতে আসা অধিকাংশই লোকজনই মানছেন না শারীরিক দূরত্বসহ পূর্ণাঙ্গ স্বাস্থ্যবিধি।