দেশের ভঙ্গুর স্বাস্থ্যখাত আজ প্রমাণিত: মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত: ৮:২৮ অপরাহ্ণ, জুন ৫, ২০২০

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আজ যখন করোনাভাইরাস সারা পৃথিবীকে আক্রমণ করেছে, বাংলাদেশে আক্রমণ করেছে, তখন আমাদের স্বাস্থ্যখাত যে কতটা ভঙ্গুর সেটা প্রমাণিত হয়ে গেছে।’

বিএনপি নেতা আরও বলেন, ‘আমাদের সরকার উন্নয়নের কথা বলে, প্রবৃদ্ধির কথা বলে, কিন্তু কোনো প্রবৃদ্ধি, কোনো উন্নয়ন সফল হবে না, যদি না সত্যিকার অর্থেই বৃহত্তর জনগোষ্ঠী তা থেকে লাভবান হয়। আজকে কী হয়েছে? এক শ্রেণির মানুষ অনেক উপরে উঠে গেছে। আরেক শ্রেণির মানুষ নিচে নেমে গেছে। এই অবস্থায় কখনো সুষম অর্থনৈতিক উন্নয়ন হতে পারে না।’

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে ‘শহীদ জিয়ার কৃষি বিপ্লব‘ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল এসব মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা ভুলে যাই যে, ১৯৭৪ সালে আওয়ামী লীগের দুর্নীতি ও ভুল নীতির কারণে ভয়াবহ রকম একটা দুর্ভিক্ষ হয়েছিল। বলা হয়ে থাকে, তখন দশ লাখ মানুষ মারা গিয়েছিলো। তখন খাদ্যের অভাব ছিলো না। অমর্ত্য সেন তাঁর বইয়ের মধ্যে পরিষ্কার করে বলেছেন, এটা ছিলো মানবসৃষ্ট দুর্ভিক্ষ। অর্থাৎ একদিকে ম্যানেজমেন্টের সমস্যা, অন্যদিকে দুর্নীতি।’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘জিয়াউর রহমান দায়িত্বে আসার পর কৃষির ওপর গুরুত্ব দিয়ে একদিকে সেচের ব্যবস্থা করলেন, অন্যদিকে উন্নতো বীজের ব্যবস্থা করলেন, কৃষি উপকরণগুলো সহজলভ্য করলেন, সার-কীটনাশকের ব্যবস্থা করলেন, তখন আবার দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হলো। আরেকটি যুগান্তকারী কাজ তিনি করেছিলেন। পল্লী বিদ্যুৎ তিনি নিয়ে এসেছিলেন। গ্রামীণ অর্থনীতিতে অনেক বেশি ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছিলো এই পল্লী বিদ্যুৎ।’

বিএনপি নেতা বলেন, ‘আজকে যখন আমরা এই ভয়ংকর কোভিড-১৯ মোকাবিলা করছি এবং জনগণ বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সরকারের ভ্রান্ত-নীতির কারণে। তখন বার বার জিয়াউর রহমানের কথা মনে হয়। তাঁর নেতৃত্ব যদি আর কিছু দিন পেতাম, তাহলে হয়তো এই ভঙ্গুর স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, এই ভঙ্গুর অর্থনীতি দেখতে হতো না। তার পরও আমরা আশাবাদী। জিয়ার আদর্শ, ১৯ দফা কর্মসূচি, বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ এইগুলোকে সামনে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।’