দেশেই তৈরি হচ্ছে ফাইভজি স্মার্টফোন

প্রকাশিত: ৭:৫৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৪, ২০২০

 

পঞ্চম প্রজন্মের ফোন অর্থাৎ ফাইভজি ফোন এখন দেশেই তৈরি হচ্ছে। স্যামসাংয়ের তৈরি এই ফাইভজি ফোন দেশের প্রয়োজন মিটিয়ে বিদেশে রফতানির পরিকল্পনা রয়েছে উৎপাদকদের। এরই মধ্যে বাজার খোঁজা হচ্ছে বিভিন্ন দেশে। স্যামসাংয়ের মূল প্রতিষ্ঠান থেকে অনুমোদন পেলে এ ব্যাপারে উদ্যোগী হবেন এ দেশীয় উৎপাদকরা।

দেশে স্যামসাং মোবাইলের উৎপাদক প্রতিষ্ঠান ফেয়ার গ্রুপের সূত্রে জানা গেছে, ফাইভজি ফোন স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট-২০ ও নোট-২০ আল্ট্রা বাজারে ছাড়ার পরপরই স্মার্টফোনপ্রেমীদের আগ্রহের কেন্দ্রে পরিণত হয়। প্রি-বুকিংয়েই প্রায় তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার ফোন শেষ হয়ে যায়। দাম বেশি হলেও ক্রেতাদের আগ্রহের কোনও কমতি ছিল না বলে জানিয়েছে ফেয়ার গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটি চার হাজার ইউনিট ফাইভজি ফোন বাজারে ছাড়ে।

দেশে তৈরি ফাইভজি ফোনের বিষয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার গণমাধ্যমকে বলেন- আমাদের দেশেই এখন তৈরি হচ্ছে ফাইভজি মোবাইল ফোন। বিষয়টি আমাদের জন্য আনন্দের। আমরা জানতে পেরেছি, ফাইভজি ফোন নির্মাতারা এটি রফতানি করবে। আমরা আমদানিকারকের দেশ থেকে উৎপাদকের দেশ হয়েছি। হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারে আমরা রফতানিকারকের দেশ হয়েছি। এবার মোবাইল ফোনেও আমরা রফতানিকারকের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাব ওয়ালটন শুরু করেছে। অন্যরাও ধীরে ধীরে শুরু করবে।

তিনি আরও বলেন- ‘আমি জানতে পেরেছি, দেশের মোট চাহিদার মোবাইল ফোনের ৮২ শতাংশ এখন দেশেই তৈরি হচ্ছে। খুব অল্পসংখ্যক ফোন আমরা এখন আমদানি করছি। একটা সময় সেটাও আর করতে হবে না। দেশে তৈরি ফোন দিয়েই আমরা চাহিদা মেটাতে পারব।’

প্রসঙ্গত, দেশে স্যামসাং, ভিভো, ওয়ালটন, অপো, সিম্ফনি, আইটেল, টেকনো, ফাইভস্টার, উইনস্টার, লাভা ইত্যাদি ব্র্যান্ডের মোবাইল তৈরি হচ্ছে। দেশীয় একটি প্রতিষ্ঠান ‘উই’ নামের একটি ফোন তৈরি করলেও পরে তারা উৎপাদন বন্ধ করে দেয়। প্রতিষ্ঠানগুলো শুরুতে ‘লো-অ্যান্ড’-এর স্মার্টফোন তৈরি করলেও ধীরে ধীরে ‘হাই-অ্যান্ড’ সেট তৈরি করছে। দেশে মোবাইল তৈরির কারখানা এখন ৯টি। এ সংখ্যা আরও বাড়বে বলে জানা গেছে।

স্যামসাং মোবাইলের বিষয়ে জানতে চাইলে ফেয়ার ইলেকট্রনিকসের প্রধান বিপণন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মেসবাহ উদ্দিন বলেন- ফাইভজিসহ স্যামসাংয়ের যেসব ফোন এখন বাজারে পাওয়া যায়, তার ৯৯ দশমিক ৯৯ শতাংশ ফোন এ দেশে তৈরি। যে ০ দশমিক ১ শতাংশ বাকি থাকে তা আমরা আমদানি করি। যেমন স্যামসাং ফোল্ড সিরিজের ফোন আমরা আমদানি করি। শিগগির ফোল্ড-২ সিরিজের ফোন বাজারে আসবে, যা কোরিয়ায় তৈরি।