দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হলো মিসরের পিরামিড

প্রকাশিত: ৭:৫৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ২, ২০২০

নভেল করোনাভাইরাসের থাবা থেকে বাঁচে নি আফ্রিকা মহাদেশও। এরইমধ্যে সেখানে চার লাখ ছাড়িয়েছে সংক্রমণ। মারা গেছে ১০ হাজারের বেশি মানুষ। এরই মধ্যে তিন মাস পর চালু হলো মিসরের বিমানবন্দরগুলো। দ্বার খুলেছে ইতিহাসসমৃদ্ধ দেশটির সব মিউজিয়াম। গোটা বিশ্বের পর্যটকের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে পিরামিড।

মিসরের জাতীয় বিমান সংস্থা ইজিপ্টএয়ার জানিয়েছে- ১৪টি আন্তর্জাতিক বিমানে অন্তত দুই হাজার যাত্রী গতকাল বুধবার কায়রো বিমানবন্দর থেকে সফর করেছেন। সাড়ে তিনশরও বেশি ইউক্রেনীয় পর্যটককে নিয়ে দুটি বিমান নেমেছে লোহিত সাগরের হারগাদায়। লোহিত সাগরের উপকূলে মিসরের অন্যতম আকর্ষণীয় পর্যটনকেন্দ্র এটি।

মিসরের পুরাতত্ত্ববিষয়ক সুপ্রিম কাউন্সিলের সেক্রেটারি জেনারেল মুস্তাফা ওয়াজিরি জানান- অন্তত ১২টি জাদুঘর ও পর্যটনস্থলে ইতোমধ্যে পর্যটকেরা আসতে শুরু করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে গিজার পিরামিড, কায়রোর ‘দ্য সিটাডেল অব সালাডিন’, কারনাকের প্রাচীন মন্দির, লাক্সরের ‘মরচুয়ারি টেম্পল অব হ্যাটশেপসুট’।

মুস্তাফা ওয়াজিরি জানিয়েছেন- করোনার সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে যাবতীয় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সরকার চায় পর্যটনের হাত ধরেই দেশের ভেঙে পড়া অর্থনীতিকে ফের চাঙ্গা করতে।

ইউরোপের বেশিরভাগ দেশে লকডাউন শিথিল হলেও পর্যটন পুরোনো চেহারায় ফেরে নি। কিছু দেশ আন্তর্জাতিক সফর নিষিদ্ধ করছে। কিছু দেশ অনুমতি দিলেও পরামর্শ দিচ্ছে, খুব প্রয়োজন না থাকলে বিদেশ সফর না করতে। ফলে পর্যটনকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোর হাল সুবিধার নয়।