থমকে আছে নগর উন্নয়ন: অগ্রগতি নেই বিভিন্ন ওয়ার্ডের উন্নয়নকাজে

প্রকাশিত: ১০:০১ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

ঢাকার দুই সিটির নতুন ওয়ার্ডগুলোর ৮ হাজার ৪০০ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রস্তাব ঝুলে আছে ২ বছর ধরে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পেলেও একনেকে পাশ হয় নি প্রস্তাব। করোনা পরিস্থিতিতে একনেক সভা না হওয়ায় থমকে আছে উন্নয়ন প্রকল্প। এদিকে নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে না পারায় সিটি করপোরেশন পাচ্ছে না রাজস্ব।

২০১৭ সালের ৩০ জুলাই ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির সম্প্রসারিত অংশে গঠিত হয় ৩৬টি নতুন ওয়ার্ড। এসব ইউনিয়নভুক্ত এলাকায় নেই উন্নত রাস্তাঘাট, পানি সরবরাহ, পয়ঃনিষ্কাশন, মশা নিয়ন্ত্রণসহ নাগরিক সুযোগ-সুবিধা। নবগঠিত ওয়ার্ডগুলোর উন্নয়নে ২০১৮ সালে দুই সিটিতে মোট ৮ হাজার ৪০০ কোটি টাকা বরাদ্দের ঘোষণা আসে।

তবে দুই বছর পার হলেও আলোর মুখ দেখে নি সেই প্রকল্প বরাদ্দ। জলাবদ্ধতা, ভাঙ্গাচোরা রাস্তাঘাট আর অনু্ন্নত পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার মাঝেই বসবাস করছে তিলোত্তমা ঢাকার ৩৬টি ওয়ার্ডের প্রায় ৪০ লাখ মানুষ। এদিকে নাগরিক সুবিধা না দিতে পারায় বাসিন্দাদের কাছ থেকে রাজস্ব আদায় করতে পারছে না সিটি করপোরেশন। আয় না হওয়ায় ব্যাহত হচ্ছে উন্নয়ন।

তবে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলছেন- বরাদ্দের জন্য প্রয়োজনীয় যাচাই-বাচাই শেষ হয়েছে। এখন অপেক্ষা একনেকের বৈঠকে ওঠার। করোনার কারণে একনেকের বৈঠক না হওয়ায় পাশ হচ্ছে না প্রস্তাব ।

ঢাকা সিটির অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর নতুন ৩৬ ওয়ার্ডের মানুষের মনে উন্নয়ন নিয়ে ছিলো ব্যাপক প্রত্যাশা। এলাকাবাসী চায় দ্রুত উন্নত নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করে সেই প্রত্যাশা পূরণ হোক।