তরুণের আহাজারিতে গলে নি বাড়িওয়ালার মন, সার্টিফিকেট উধাও

প্রকাশিত: ৪:১৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ২, ২০২০

করোনায় মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে সাধারণ ছুটি। বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এমন অবস্থায় বিভিন্ন মেসে থাকা শিক্ষার্থীরা ফিরে যান গ্রামের বাড়িতে। দীর্ঘদিন পর ঢাকায় ফিরে দেখেন তাদের বই খাতা, জামাকাপড় কিছুই নেই। আরও বড় দুঃসংবাদ হলো তাদের সার্টিফিকেটগুলোও নেই। দু- তিন মাসের ভাড়া বকেয়া- তাই বাড়িওয়ালা সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়িতে তুলে দেন এসব সামগ্রী।

ধানমণ্ডির এক বাসার সামনে দেখা মিললো একজন তরুণের আহাজারি। তবে তার আহাজারি মন গলাতে পারে নি ধানমণ্ডির বাড়ির মালিকের। গেলো চার বছর বাড়ির নিচতলায় ভাড়া থাকেন সজিব খান। তার সঙ্গে ছিলেন আরও+ ৮ জন। সবাই ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী।

এরকম ঘটনার শিকার বেসরকারি সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ধশত শিক্ষার্থীও। সম্প্রতি তারা ঢাকায় তাদের মেসে এসে দেখেন বই, ল্যাপটপ, জামাকাপড় এবং মূল্যবান সব সার্টিফিকেট উধাও।

থানায় অভিযোগ করার পর পুলিশ সন্ধান পায় মেসের পরিচালকের। একটি বাড়ির গ্যারেজ থেকে উদ্ধার হয় তাদের ছেড়া জামাকাপড়, ভাঙ্গা ট্রাংকসহ অন্যান্য জিনিসপত্র। তবে অনেকের সার্টিফিকেট পাওয়া যাচ্ছে না।

আটককৃত মেস পরিচালকের একটাই কথা- ভাড়া বকেয়া, তাই তিনি সব মালামাল ফেলে দিয়েছেন। তিনি বলছেন- “আমরা দুই মাস যখন ভাড়া পাই নি, তখন আমরা এসব করেছি।”

এমন পরিস্থিতিতে কি ব্যবস্থা নিতে পারে পুলিশ?

এ বিষয়ে ডিএমপির (নিউমার্কেট জোন) সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার আবুল হাসান বলেন- “আমরা ছাত্রদের আশ্বস্ত করেছি, যে ডকুমেন্টসগুলো হারানো গেছে সেগুলো যেনো তারা পেতে পারেন সে বিষয়ে আমরা সর্বোচ্চ সহযোগীতা করবো। আমরা বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।”

শিক্ষার্থীরা বলছেন- ময়লার গাড়িতে সার্টিফিকেট নয় যে তুলে দেয়া হয়েছে দির্ঘ দিনের লালিত স্বপ্নগুলো।