জোনভিত্তিক লকডাউন মানছে তিন জেলা, অবহেলায় করোনা হট স্পট নারায়নগঞ্জ

প্রকাশিত: ১২:১১ পূর্বাহ্ণ, জুন ১০, ২০২০

নোয়াখালী, চাঁদপুর ও কক্সবাজারে লকডাউন মানা হচ্ছে কঠোরভাবে। নির্ধারিত সময়ে দোকান খোলা রাখা গেলেও মানুষের চলাচল একেবারেই সীমিত। তবে ঘরে খাবার পৌঁছে দেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। এদিকে করোনার উচ্চঝুঁকিতে থাকা নারায়ণগঞ্জে লকডাউন দেয়া হলেও তা একেবারেই ঢিলেঢালা।

করোনা সংক্রমণের রাশ টেনে ধরতে ঝুঁকি বিবেচনায় জোন ভাগ করা হচ্ছে। এরই মধ্যে রেড জোন চিহ্নিত করে বেশ কয়েকটি এলাকায় নতুন করে লকডাউন দেয়া হয়েছে।

কক্সবাজার পৌর সভার ১২টি ওয়ার্ডে চলছে লকডাইন। ৬ জুন থেকে শুরু হওয়া এই লকডাইনে পুরো শহর জুড়ে মাঠে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। একইভাবে গতকাল মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া লকডাউনে কড়াকড়ি চলছে চাঁদপুর ও নোয়াখালীতে। নোয়াখালী সদর ও বেগমগঞ্জের রাস্তাঘাট প্রায় ফাকা। প্রয়োজন ছাড়া খুব একটা বাইরে দেখা যায়নি স্থানীয়দের।

চাঁদপুরে জেলা লকডাউনের পাশাপাশি লকডাউন থাকবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর বাড়ি ও প্রয়োজন অনুযায়ী আশপাশের কয়েকটি বাড়ি।

এদিকে করোনার হট স্পট নারায়নগঞ্জের চিত্র ঠিক তার উল্টো। তিন এলাকায় ঢিলেঢালাভাবে চলছে লকডাউন। অন্যান্য এলাকায় খোলা রয়েছে দোকান পাট। প্রশাসনেরও অতিরিক্ত কোন তৎপরতা নেই। পুলিশ সুপার জানিয়েছেন রেডজোন এলাকা নিয়ন্ত্রনের জন্য ৫০ জন পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

করোনা প্রতিরোধে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় প্রশাসনের কড়া নজরদারি চায় সংশ্লিষ্টরা।