করোনায় ২ বিলিয়ন ডলার ক্ষতির মুখে কান্তাস এয়ারওয়েজ

প্রকাশিত: ৯:১৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০২০

করোনা ভাইরাসের কারণে বড় ধরণের আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে কান্তাস এয়ারওয়েজ। এর প্রভাবে বাৎসরিক ২ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে বলে জানিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার রাষ্ট্রীয় বিমান পরিবহন সংস্থাটি।

সংস্থাটি বলছে, ১শ’ বছরের মধ্যে বিমান পরিবহণের ব্যবসায় সবচেয়ে বাজে সময় পার করছে এয়ারলাইন্সগুলো। সম্প্রতি ৬ হাজার কর্মী ছাটাই করার যে ঘোষণা দিয়েছিল কান্তাস এয়ারওয়েজ; সেই ঘোষণা মতে ৪ হাজার কর্মীকে ছাঁটাই করার পরিকল্পনা আগামী মাসেই (সেপ্টেম্বর) বাস্তবায়ন করারও আভাস দিয়েছে সংস্থাটি।

কান্তাস গ্রুপের প্রধান নির্বাহী এলান জয়েস এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, কোভিড-১৯ এর প্রভাব একদম স্বচ্ছ ও পরিষ্কার। ভয়নক বাজে অবস্থা এবং অনেক কোম্পানি টিকে থাকতে পারবে কিনা সেই প্রশ্নও সামনে এসেছে। ঘুরে দাঁড়াতে বেশ সময় লাগবে এবং সেই সময়টাও বেশ অস্থিরতার মধ্যেই পার হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
আগামী অর্থবছরেও বিমান পরিবহণ সংস্থাগুলো উল্লেখযোগ্য পরিমাণ ক্ষতির মধ্যেই থাকবে বলেও সতর্কও করেন তিনি।

করোনার কারণে অস্ট্রেলিয়ার আন্তর্জাতিক সীমানা সবই বন্ধ রয়েছে এবং এই দৃশ্য পরিবর্তনের কোনো চিহ্নও দেখা যাচ্ছে না। তাই সিডনি ভিত্তিক এই বিমান সংস্থাটি আগামী বছরের জুলাইয়ের আগে ফ্লাইট স্বাভাবিক হবে না বলেই ধরে নিচ্ছে। তবে এর আগে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে কান্তাসের চলাচল স্বাভাবিক হওয়ার একটি সম্ভাব্য ব্যতিক্রমের প্রত্যাশা করছে সংস্থাটি।

১৯২০ সালে প্রতিষ্ঠিত এবং কান্তাস এয়ারওয়েজ বিশ্বের তৃতীয় প্রাচীন এয়ারওয়েজ। বিমান বহর, ফ্লাইট আর গন্তব্য বিবেচনায় এটিই বিশ্বের সবচেয় বড় এয়ারলাইন্স। প্রথমদিকে অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রীসেবা দিলেও ১৯৩৫ সাল থেকে এটি আন্তর্জাতিক রুটে যাত্রা পরিচালনা করছে। কান্তাসের পূর্ণরূপ কুইন্সল্যান্ড অ্যান্ড নর্দার্ন টেরিটোরি এরিয়াল সার্ভিস। এর একটি ডাকনাম আছে ‘দ্য ফ্লাইং ক্যাঙ্গারু’।