করোনাকালে বাড়ছে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা

প্রকাশিত: ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৪, ২০২০
প্রতীকি ছবি

করোনা মহামারীর দুমাসের সাধারণ ছুটিতে দেশে অপরাধ কমে এলেও বেড়েছে নারী ও শিশু নির্যাতন। পারিবারিক দ্বন্দ্ব ও সংঘাতের শিকারও হচ্ছেন নারীরা। ছুটির মধ্যে আইনগত সুবিধা নিতে না পারায় বেশিরভাগ ঘটনাই পড়ছে ধামাচাপা, আসামিরা পার পেয়ে যাচ্ছেন এমন অভিযোগ করেছেন মানবাধিকার কর্মীরা।

৯ মে নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার ইউপি চেয়ারম্যান কাঞ্চনের বাসার গৃহকর্মী ১৪ বছরের মারুফাকে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেবার চেষ্টা করা হয়। আর ১২ জুন লক্ষ্মীপুরে বাবার চিকিৎসার জন্য পরিবারের অন্যরা ঢাকায় থাকা অবস্থায় বাড়িতে একা পেয়ে ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী হিরামণিকে ধর্ষণের পর হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার পরিসংখ্যান বলছে, করোনা সংকটের এ সময়ে সাধারণ অপরাধ কমে এলেও বেড়েছে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতার ঘটনা। উন্নয়নকর্মীরা বলছেন, এর পেছনে রয়েছে স্বল্প আয়ের মানুষের রোজগার আরও কমে যাওয়া, খাবার সংকট, ঋণের চাপ এবং কোথাও কোথাও মাদকের ব্যবহার বেড়ে যাওয়া।

পুলিশ সদর দপ্তরের পরিসংখ্যানও বলছে, তিনমাসে সাধারণ অপরাধ কমলেও কমে নি ধর্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতন এবং পারিবারিক সহিংসতার ঘটনা।

মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, লকডাউনে আইনগত সহায়তার সুবিধা নিতে না পারায় বেশিরভাগ সহিংসতার ঘটনাই আড়ালে থেকে যাচ্ছে।

নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা বন্ধে হটলাইন ১০৯ ও পুলিশি সহায়তার হটলাইন ৯৯৯ কে আরও কার্যকর ও সক্রিয় রাখার ওপর জোর দিচ্ছেন তারা।