আরও ছয় দিনের রিমান্ডে হেলেনা

প্রকাশিত: ৬:২৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩, ২০২১
আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটি থেকে সদ্য অব্যাহতি পাওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীর। ছবি : ফোকাস বাংলা

আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটির সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গুলশান থানার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় ছয় দিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসি এই আদেশ দেন।

আজ ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গুলশান থানার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় পুনরায় ১০ দিন ও একই থানার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় পাঁচ দিনসহ মোট ১৫ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তিন দিন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় তিন দিন রিমান্ডের আদেশ দেন।

এর আগে আজ ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনূর রহমান পল্লবী থানার টেলিকমিউনিকেশন অ্যাক্টের মামলায় চার দিন ও মিরপুর থানার প্রতারণার মামলায় চার দিনসহ মোট আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এ নিয়ে আজ চারটি মামলায় পৃথক দুই ম্যাজিস্ট্রেট হেলেনা জাহাঙ্গীরকে ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সাধারণ নিবন্ধন (জিআর) শাখা থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে রাজধানীর গুলশান ২ নম্বরে হোটেল ওয়েস্টিনের পেছনে ৩৬ নম্বর সড়কের পাঁচ নম্বরে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব। প্রায় চার ঘণ্টা অভিযান চলে। এ সময় তাঁর বাসা থেকে বিদেশি মদ ও মুদ্রা, হরিণ ও ক্যাঙ্গারুর চামড়া, ওয়াকিটকি সেট এবং ক্যাসিনোর সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয় বলে অভিযান শেষে জানান র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু।

এরপর শুক্রবার বিকেলে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গুলশান থানায় হস্তান্তর করা হয়। সেখানে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে দুটি মামলা হয়। একটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে, আরেকটি মাদকসহ অন্যান্য ধারায়। পরে তাঁকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। শুক্রবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে র‍্যাব-৪-এর একজন পরিদর্শক হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে রাজধানীর পল্লবী থানায় টেলিকমিউনিকেশন অ্যাক্টে আরেকটি মামলা করেন।

এরই মধ্যে সবশেষ গতকাল সোমবার দিবাগত রাতে রাজধানীর গাবতলী এলাকা থেকে হাজেরা খাতুন ও সানাউল্ল্যাহ নূরী নামের দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। তাদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, গ্রেপ্তার দুজন হেলেনা জাহাঙ্গীরের সহযোগী।