আম পাড়াকে কেন্দ্র করে ঢাবির প্রাক্তন শিক্ষার্থী ‘খুন’

প্রকাশিত: ২:০১ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৯, ২০২০

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলায় আম পাড়াকে কেন্দ্র করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মেহেদী মোস্তফা রাজিবকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে বলে তাঁর চাচাতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) সকাল ১১ টার দিকে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা ইউনিয়নের গাড়াবাড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শিক্ষার্থী মেহেদী মোস্তফা রাজিব গাড়াবাড়ি গ্রামের গোলাম মোস্তফার সন্তান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ২০০৬-২০০৭ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র।

ভূঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রাশিদুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) সকাল ১১ টার দিকে আম পাড়াকে কেন্দ্র করে মেহেদীর মায়ের সঙ্গে চাচাতো ভাই জিহাদের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জিহাদ ক্ষিপ্ত হয়ে ঘরে থাকা ছুরি দিয়ে মেহেদীর মাকে আঘাত করতে গেলে বাঁধা দেন মেহেদী মোস্তফা রাজিব। এ সময় কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাঁকে ছুরিকাঘাত করেন জিহাদ। এরপরই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন মেহেদী। পরে তাঁকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইলের শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বিকাল ৫ টার দিকে মেহেদী মারা যান।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভূঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রাশিদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। আমরা আসামিকে ধরতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। হত্যার ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রাব্বানী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী মেহেদি খুন হয়েছে। সামান্য আম পারাকে কেন্দ্র করে এমন ঘটনা মেনে নেওয়া যায় না। বিষয়টি অবশ্যই অনাকাঙ্খিত। আমরা প্রশাসনের সাথে কথা বলে দোষীদের শাস্তি নিশ্চিতে যা করা দরকার সেটাই করবো।

এদিকে মেধাবী শিক্ষার্থী মেহেদীর সাবেক সহপাঠী শোভন জানান, রাজিব ২০০৬-২০০৭ সেশনে ঢাবিতে আইন বিভাগে জহুরুল হক হলের আবাসিক ছাত্র হিসেবে ভর্তি হোন। এরপর তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে রাহাত-সমুন পরিষদের হল শাখার আইন বিষয়ক সম্পাদক ও পরে রিফাত-জয় পরিষদের হল শাখার সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।