আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু: সুফল পাচ্ছে না দেশীয় বিমান সংস্থাগুলো

প্রকাশিত: ১০:২৭ পূর্বাহ্ণ, জুন ২২, ২০২০
বিমান বাংলাদেশের উড়োজাহাজ। ছবি : সংগৃহীত

ঢাকা থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু হলেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশীয় এয়ারলাইনসগুলো। যাত্রী হারানোর শংকার পাশাপাশি ক্ষতির মুখে পড়ছে রাষ্ট্রায়ত্ত বাংলাদেশ এয়ারলাইনস এবং বেসরকারি ইউএস-বাংলা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আন্তর্জাতিক যাত্রী পরিবহণের জন্য বিদেশী অপারেটরদের অনুমতির ক্ষেত্রে দুটি দেশী অপারেটরকে অগ্রাধিকার দেয়া উচিত ছিলো বেবিচকের।

ঢাকা থেকে যাত্রী পরিবহণ শুরু করেছে কাতার এয়ারওয়েজ। অনুমতি পেয়েছে এমিরেটস এয়ারলাইনস। তবে করোনাভাইরাসের কারণে দুবাই ও দোহাতে বাংলাদেশী যাত্রী প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকায় কেবল ঢাকা-দুবাই এবং ঢাকা-দোহা রুটে ট্রানজিট যাত্রী পরিবহণ করবে এমিরেটস এয়ারলাইনস। আর টিকিটের দাম বেশি রাখার অভিযোগ উঠার মধ্যেই ঢাকার অফিস সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করেছে কাতার এয়ারওয়েজ।

রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস এবং বেসরকারি ইউএস বাংলার আন্তর্জাতিক রূটগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিলো কাতার এবং দোহা। যাত্রী সংখ্যাও বেশি ছিলো এই দুই রুটে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোকাব্বির হোসেন বলেন,’বিমানের এবং সেইসঙ্গে দেশের স্বার্থটা দেখতে হবে।’

সিভিল এভিয়েশন বলছে দেশী অপারেটরদের সুযোগ দিতেই কম স্লট বরাদ্ধ দেয়া হচ্ছে বিদেশী অপারেটরদের। বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান বলেন,’বাংলাদেশ থেকে বিমান পরিচালনা করার জন্য যাদেরকে আমরা সুযোগ দিচ্ছি, তাদের একটাই শর্ত দিচ্ছি যে- আমাদের কেরিয়ারগুলো যেনো ওখানে অপারেট করতে পারে। আমাদের কেরিয়ারগুলো কীভাবে বিজনেস করবে, যাত্রী পরিবহণ করবে এটা প্রতিটি এয়ারলাইনসের নিজস্ব পরিকল্পনা করতে হবে।’