অতিবৃষ্টি-পাহাড়ি ঢলে নেত্রকোনায় আবারও বন্যা, পানিবন্দি ২৫ হাজার মানুষ

প্রকাশিত: ৬:২৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০২০

তিনদিনের অবিরাম বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে নেত্রকোনার কলমাকান্দা, বারহাট্টা, দুর্গাপুর ও সদর উপজেলার কালিয়ারা গাবরাগাতি ইউনিয়নে আবারও বন্যা দেখা দিয়েছে। চার উপজেলায় নিম্নাঞ্চলের আড়াই শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে, ডুবে গেছে বহু গ্রামীণ রাস্তা। এর ফলে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অন্তত ২৫ হাজার মানুষ।

এরই মধ্যে দুর্গাপুরে সোমেশ্বরী নদীর পানি এবং কলমাকান্দার উব্দাখালী নদীর পানি বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানিয়েছে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড। এছাড়া জেলার মগড়া, মহাদেও ও কংশসহ অন্যান্য নদীর পানিও দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, কলমাকান্দা ও বারহাট্টার ১৫ একর জমির আমন বীজতলা পানিতে ডুবে গেছে।

কলমাকান্দা উপজেলা সদর, লেঙ্গুরা, রংছাতি, পোগলা, কৈলাটিসহ বেশ সবকটি ইউনিয়নের শতাধিক গ্রামের নিচু এলাকা এরই মধ্যে পানিতে তলিয়ে গেছে। উপজেলার অফিস-আদালত ও বাসা-বাড়িতে পানি প্রবেশ করেছে। ডুবে গেছে বেশ কয়েকটি সড়ক।

বন্যাকবলিতরা জানিয়েছেন, বাড়ি-ঘরে পানি উঠে পড়ায় দুর্ভোগে আছে তারা। এছাড়া বন্যার পানিতে প্রায় তিন হাজার পুকুরের মাছ ভেসে গেছে।

নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক (ডিসি) মঈনউল ইসলাম জানান- অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে পানি বাড়ছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসাররা (ইউএনও) খোঁজ-খবর রাখছেন। দুর্গতদের জন্য যথেষ্ট ত্রাণসামগ্রী মজুদ আছে। এরই মধ্যে দুর্গাপুর, কলমাকান্দা ও খালিয়াজুরী উপজেলায় ২০ মেট্রিকটন করে চাল এবং দুর্গাপুর ও কলমাকান্দায় আরও ৪০০ শুকনা খাবারের প্যাকেট পাঠানো হয়েছে।